সোনারগাঁয়ে বিএনপি প্রার্থীর প্রচারণায় ছাত্রলীগের হামলা, আহত-১৫

466

তৌরব হোসেন, সোনারগাঁঃ নারায়ণগঞ্জ-৩ সোনারগাঁ আসনের বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আজহারুল ইসলাম মান্নানের প্রচারণায় স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সোমবার দুপুরে জামপুর ইউনিয়নের মাঝেরচর ঈদগাহ এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগের হামলায় ১৫জন বিএনপি কর্মী আহত হয়েছে। আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৩জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। ঘটনার পর এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় বিএনপির প্রার্থী আজহারুল ইসলাম মান্নান ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে গণসংযোগ করছিলেন। এসময় তিনি মাঝেরচর এলাকায় গণসংযোগকালে মাঝেরচর ঈদগাহ এলাকায় পৌঁছালে মহাজোট ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা মুখে কাপড় বেঁধে বিএনপির প্রার্থী আজহারুল ইসলাম মান্নানের সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীদের উপর লাঠিসোটা, হকিস্টিক, লোহার রড নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় বিএনপি নেতা ওসমান মেম্বার, ইয়ামিন মিয়া, যুবদল নেতা ইফতেখার হোসেন খোকন, শান্ত খাঁন, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সদস্য ইয়াসিন ভুইয়া, ছাত্রদল নেতা সানি, রাজসহ ১৫জন নেতাকর্মী আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে ইয়ামিন, ইফতেখার হোসেন খোকন ও সানি নামের ৩ জনের অবস্থা আশংকাজনক।
বিএনপির প্রার্থী আজহারুল ইসলাম মান্নান বলেন, সকাল থেকে জামপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় নেতাকর্মীদের নিয়ে গণসংযোগ করছিলাম। মাঝেরচর ঈদগাহ এলাকায় মহাজোট প্রার্থী খোকার সমর্থক ছাত্রলীগের কয়েকজন মোটরসাইকেলে এসে পেছন থেকে অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমার ১৫জন নেতাকর্মীকে আহত করে। নির্বাচনে ধানের শীষের পক্ষে মানুষের ঢল দেখে ইর্ষাণি¦ত হয়ে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায়।
তিনি আরও বলেন, প্রশাসন আমার সাথে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে। আমাদের প্রচারনায় মহাজোট প্রার্র্থীর লোকজন হামলা করছে এ বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। আমাদের জয় হামলা-মামলা দিয়ে ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না।
সোনারগাঁ থানার ওসি তদন্ত সেলিম মিয়া বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। ঘটনার তদন্তে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.শাহিনুর ইসলাম ও ওসি মোরশেদ আলম ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। বিষয়টি অতি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হবে।