বৈদ্যেরবাজার ইউপির ৫নং ওয়ার্ড জাপা নেতার বাড়িঘর ভাংচুর-লুটপাট, চাঁদা দাবি, নারীসহ আহত ৮

507

তৌরব হোসেন, সোনারগাঁ প্রতিনিধিঃ সোনারগাঁয়ের বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড জাতীয় পার্টির সভাপতি হাজী সিদ্দিক মেম্বারের বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট ও নারীসহ ৮জনকে পিটিয়ে আহত করা হয়। পাশাপাশি তাদের এলাকায় থাকতে হলে ১ লাখ চাঁদা দাবি করার অভিযোগ উঠেছে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনের সমর্থক স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় হাজী সিদ্দিক মেম্বার বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
জাপা নেতা হাজী সিদ্দিক মিয়া জানান, তিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহফুজুর রহমান কালামের পক্ষে নির্বাচন করেছেন। রবিবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মাহফুজুর রহমান কালাম পরাজিত হওয়ায় বিজয়ী প্রার্থী মোশারফ হোসেনের সমর্থক মজিবুর মেম্বারের নেতৃত্বে রহিম, রফিকুল, রিপন, সেলিম, খায়ের, রাসেল, কামাল, মোতালেব, হাবিবুর, সোলমান, আতু, মোতালেব ও পনির সহ অজ্ঞাত ৪০/৫০ জন লোক দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে রাতের বেলা তার বাড়ির গেইট ও দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে খাট, সোকেচ, আলমারিসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর এবং নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটপাট করেছে। এসময় বাধা দেওয়ায় তারা হাজী সিদ্দিক মেম্বার, রাবেয়া বেগম, সামসুন্নাহার, জজ মিয়া, সোবহান, আলামিন, কাইয়ুম ও মোমেন মিয়াকে পিটিয়ে আহত করেছে। এছাড়া এলাকায় থাকতে হলে তাদেরকে ১ লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে, অন্যথায় হত্যা করার হুমকি দিয়েছে। চাঁদাবাজদের হুমকির কারণে হাজী সিদ্দিক মেম্বার নিরাপত্তাহীনতায় দিনযাপন করছেন।
এ ব্যাপারে সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির জানান, হাজী সিদ্দিক মেম্বারের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুরের খবর শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। হামলা ঘটনায় তিনি এখনো থানায় লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।