সোনারগাঁয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ানের প্রহারে কাঠমিস্ত্রী আহতের ঘটনায় সর্বত্র নিন্দা, ক্ষোভ ও বিচার দাবী

457

স্টাফ রিপোর্টারঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা ইউসুফ দেওয়ানের বিরুদ্ধে পুকুর ইজারা, মাছ ধরা ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কবির হোসেন নামে এক কাঠ মিস্ত্রীকে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় চরম ক্ষোভ, তীব্র নিন্দা ও বিচার দাবী জানিয়েছে স্থানীয়রা। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিকে ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ানের এহেন আচরনে সোনারগাঁয়ের সর্বত্র নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের মৃত আব্দুল মতিন মোল্লার ছেলে কাঠ মিস্ত্রি কবির হোসেন সরকারী ১ একর ৮ শতাংশ পুকুর সোনারগাঁ উপজেলা ভ‚মি অফিস থেকে লিজ নিয়ে প্রায় ৫০ বছর যাবত ভোগ দখল করে আসছিল। সম্প্রতি ওই লিজকৃত জমির উপর লুলোপ নজর পড়ে নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ানের। তিনি প্রভাব খাটিয়ে ও উপজেলা প্রশাসনের কয়েকজন দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে ইজারার মাধ্যমে কাঠ মিস্ত্রী কবির হোসেনের নাম বাতিল করিয়ে ওই পুকুর চেয়ারম্যানের ঘনিষ্ট সহচর ও নিকট আত্মীয় কাউসারের নামে লিজ নিয়ে নেয়। ওই লিজকৃত পুকুরে পূর্বের বরাদ্ধ পাওয়া কবির হোসেন ও আওলাদ হোসেনের চাষ করা রুই, কাতলা, তেলাপিয়া, শিং ও কইসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ থাকায় ওই মাছ ধরার জন্য তারা সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) এর কাছে আবেদন করেন। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পূর্বের বরাদ্ধ নেয়া কবির হোসেন ও আওলাদ হোসেনকে তাদের মাছ ধরে নেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেয়ার কথা থাকলেও তা অজ্ঞাত কারনে করেনি।
ইউপি চেয়ারম্যানের নির্মম প্রহারের শিকার আহত কাঠমিস্ত্রি কবির হোসেনের ছোট ভাই আওলাদ হোসেন জানান, কবির হোসেন ও সে বরাদ্ধ পাওয়া পুকুরে প্রায় ৫ লাখ টাকার মাছ চাষ করেছিল। নতুন করে বরাদ্ধ না পাওয়ায় সেই মাছ ধরে নেয়ার জন্য সোনারগাঁ উপজেলা ভূমি অফিসে তারা আবেদন করেন। আবেদনটি তদন্তনাধীন থাকা অবস্থায় চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ান তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী আনোয়ার মেম্বারের নেতৃত্বে ১০-১৫জনের একটি বাহিনী দিয়ে ওই পুকুরের মাছ ধরে নিয়ে যাওয়া শুরু করে। বিষয়টি কবির হোসেন সোনারগাঁ থানা পুলিশকে লিখিতভাবে অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মাছ ধরা বন্ধের নির্দেশ দেয়। এঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ান কাঠ মিস্ত্রী কবির হোসেনের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সরে আসার পর পরই কবির হোসেনকে একা পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ান নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করে। পরে আশপাশের লোকজন মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধারের পর কবির হোসেনকে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে।
অভিযুক্ত নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ানের সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একটি লিজকৃত জমি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ চলছে। এ ঝগড়া বিবাদ মিমাংসা করার জন্য একটু শাসন করেছি।
সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির বলেন, এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।