র‍্যাবের অভিযানে ০১ জন ভুয়া ডাক্তার গ্রেফতার

346

সময়ের চিন্তা ডট কমঃ নারায়ণগঞ্জের চিটাগাংরোডে অনুমোদনবিহীন প্রাইভেট হাসপাতালে র্যা বের অভিযানে ০১ জন ভুয়া ডাক্তার গ্রেফতার করে। র্যা ব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃংখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। র্যা ব শুর“ থেকে যে কোন ধরনের অপরাধ, প্রতারনা মূলক অপরাধ প্রতিরোধ এবং প্রতারক চক্রকে সনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে থাকে। জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য অনুমোদনবিহীন হাসপাতাল ও ভুয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে র্যা ব নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে আসছে।
এরই ধারাবাহিকতায় র্যা ব ১১, সিপিএসসি এর বিশেষ অভিযানে ৩০ জুলাই ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে সন্ধ্যায় গোপন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন চিটাগাংরোডস্থ হক সুপার মার্কেটে “নিউ মুক্তি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে’ রোগী দেখার সময় ভুয়া ডাক্তার মোঃ মোস্তাক আহম্মেদ(করিম)@ এম এ করিম বশির(৪৩), পিতা- রহিম মন্ডল’কে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে ডাঃ মোঃ মোস্তাক আহম্মেদ(করিম) এমবিবিএস(ডি-অর্থো), পিজিটি(ডি-অর্থো), পিজিটি(ইমনটি ও হৃদরোগ) চীপ মেডিকেল অফিসার, সিকদার গ্র“প, হাড় জোড়া, বাত ব্যাথ্যা, মের“দন্ড বিশেজ্ঞ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নামীয় ভিজিটিং কার্ড ও রোগী দেখার প্রেসক্রিপশন প্যাড উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায় মোঃ মোস্তাক আহম্মেদ(করিম)@ এম এ করিম (বশির) এর বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার সদর থানাধীন কুমারখালী এলাকায়। সে নিবন্ধনকৃত ডাঃ মোঃ মোস্তাক আহম্মেদ এর নাম ও বিএমএন্ডডিসি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন ন¤¦র-২৬৬৩৩ ব্যবহার করে দীর্ঘদিন যাবৎ “নিউ মুক্তি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে’ নিয়মিত রোগী দেখে আসছে। সে তার নামের পাশে ডাক্তারী ডিগ্রী হিসেবে, নিজেকে ডাক্তার মোঃ মোস্তাক আহম্মেদ(করিম) এমবিবিএস(ডি-অর্থো), পিজিটি(ডি-অর্থো), পিজিটি(ইমনটি ও হৃদরোগ) চীপ মেডিকেল অফিসার, সিকদার গ্রুপ, হাড় জোড়া, বাত ব্যাথ্যা, মেরুদন্ড বিশেজ্ঞ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নামে নিজস্ব প্যাডে প্রেসক্রিপশন ফরমে উল্লেখ করেছে। র্যা বের অভিযানিক দল নিবন্ধনকৃত চিকিৎসক হিসেবে তার বিএমএন্ডডিসি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেখতে চাইলে সে তার নামের সাথে মিল থাকায় ডাঃ মোঃ মোস্তাক আহম্মেদ এর রেজিস্ট্রেশন নাম্বার-২৬৬৩৩ দেখায়। কিন্তু উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করে যে, নিবন্ধনকৃত ডাঃ মোস্তাক আহমেদ ও সে এক ব্যক্তি নয়। তার নামের সাথে মিল থাকায় সে প্রায় ১২ বছর ধরে ভুয়া ডাক্তার হিসেবে বিভিন্ন হাসপাতালে রোগী দেখে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে আসছে। জিজ্ঞাসাবাদ সে আরো জানায় স্থানীয় কলেজ থেকে ১৯৮৯ সালে এইচএসসি পাস করার পর দীর্ঘদিন যাবৎ নিজেকে এমবিবিএস ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তার পরিচয় দিয়ে রোগী দেখে আসছে।
গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।