শিক্ষার্থীদের মাঝে ১৫ আগষ্টের নির্মম ইতিহাস তুলে ধরতে হবে-জেলা প্রশাসক

304

মোঃ নুর নবী জনিঃ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ও সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা ২০১৯ এর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার উপজেলা হলরুমে এ পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সোনারগাঁয়ের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন,নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ জসিম উদ্দিন। সভাপতির বক্তব্যে তিনি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন,পুথিঁগত জ্ঞান নয় উপজেলার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্টানগুলোতে পাঠ্য পুস্তকের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের জঙ্গি, সন্ত্রাস, মাদক, ইভজিটিংয়ের মতো ভয়াবহতা সর্ম্পকে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করতে হবে। তাহলে শিক্ষার্থীরা পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি বাহ্যিক বিষয়ে জ্ঞান লাভ করতে পারবে তিনি ।এ সময় তিনি আরো বলেন, আমরা দেশের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে পোষ্টার বিজ্ঞাপন ও লিফলেট বিলি করে গনসচেতনা তৈরী করি। এতে আমাদের বিপুল পরিমান অর্থ ও সময় ব্যয় হয়। কিন্তু আমরা যদি এসব বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের দেশের বিভিন্ন সমস্যা সামাজিক ও রাজনৈতিক বিষয়গুলো তুলে ধরি তাহলে সহজেই জনগনের মধ্যে সচেতনা চলে আসবে। কারণ একজন শিক্ষার্থী একটি পরিবারের সদস্য। সেই শিক্ষার্থী যদি বিদ্যালয় থেকে শেখা বিষয়টি পরিবারের মধ্যে গিয়ে আলোচনা করে তাহলে পুরো পরিবার ওই বিষয়টি সর্ম্পকে অবগত হবে,এতে জাতি ও দেশ এগিয়ে যাবে। বিশেষ করে পদ্মাসেতু বানাতে মানুষের মাথা লাগবে এ রকম একটি গুজব দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলে ছিলো। এক শ্রেনীর স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি দেশে অরাজকতা ও সরকারের উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্ত করতে গুজব ছড়িয়ে বেশ কয়েকজন নিরিহ মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। এসব বিষয় আমাদের বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বুঝাতে হবে যাতে তারা কোন গুজবে কান না দেয়।এছাড়া বর্তমানে আমাদের দেশে সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো ডেঙ্গু জ্বর। এতে আক্রান্ত হয়ে সকল পেশা শ্রেণীর লোক মৃত্যু বরন করছে। এ ডেঙ্গু জ্বর থেকে বাঁচতে হলে প্রত্যেকটি বাড়ীতে গনসচেতনা তৈরী করতে হবে। সেজন্য শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গুর জ্বরের কারণ ও প্রতিকার সম্পকে ক্লাসে ক্লাসে শিক্ষার্থীদের জ্ঞানদান করতে হবে।এ সময় তিনি শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে আরোও বলেন, আগামী ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে প্রত্যেকটি বিদ্যালয়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনির্মিত রাখতে হবে এবং প্রত্যেক ক্লাসে শিক্ষার্থীদের ১৫ আগষ্টের নির্মম ইতিহাস তুলে ধরতে হবে। পরে তিনি ইসলামী ফাউন্ডেশনের আলেমদের নিয়ে একটি সভা করেন। সেখানে তিনি আলেমদের উদ্দেশ্যে আগামী ১৫ আগষ্ট আপনারা প্রত্যেকটি মসজিদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের আত্মার মাগফেরাতের জন্য দোয়ার ব্যবস্থা করতে বলেন।
এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) নাজমুল হুসাইন,উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃহালিমা সুলতানা হক, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা আক্তার ফেন্সী, উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম প্রধান, কৃষি কর্মকর্তা মনিরা আক্তার, উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফ্যাসিলিটেটর মোসাঃ শাহানারা আঁচল,সমাজ সেবা কর্মকর্তাা সাকিবা সুলতানা, প্রকৌশলী আলী হায়দার খাঁন, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ইয়াছিনুল হাবীবসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।