অনুমোদনবিহীন প্রাইভেট হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযানে ১ জন ভুয়া ডাক্তার গ্রেফতার

327

সময়ের চিন্তা ডট কমঃ নারায়ণগঞ্জের চিটাগাংরোডে অনুমোদনবিহীন প্রাইভেট হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযানে ০১ জন ভুয়া ডাক্তার গ্রেফতার করে।র‍্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃংখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। র্যা ব শুরু থেকে যে কোন ধরনের অপরাধ, প্রতারনা মূলক অপরাধ প্রতিরোধ এবং প্রতারক চক্রকে সনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে থাকে। জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য অনুমোদনবিহীন হাসপাতাল ও ভুয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে র‍্যাব নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে আসছে।
এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যাব ১১, সিপিএসসি এর বিশেষ অভিযানে অদ্য ২৭ আগস্ট ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন চিটাগাংরোড সংলগ্ন চাঁন সুপার মার্কেটে অবস্থিত “”কুমিল্লা ডায়াগনিস্টিক কমপ্লেক্স (সিডি কমপ্লেক্সে)” আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট তৈরী করার সময় ভুয়া ডাক্তার মোঃ জহিরুল ইসলাম (৪৪), পিতা-মৃত রফিকুল ইসলাম’কে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে ডাঃ মোঃ জহির“ল ইসলাম, এমবিবিএস, পিজিটি (মেডিসিন এন্ড গাইনী), সিএমইউ (ডিইউ), ডিএমইউ (ডিইউ), (সনোলজিস্ট) মেডিসিন, মা, শিশু, চর্ম ও যৌন রোগের অভিজ্ঞ চিকিৎসক নামীয় ০৪ জন রোগীর ০৪টি আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট ও ০১টি রোগীর দেখার প্রেসক্রিপশন (যেখানে তার স্বাক্ষর আছে), ০১টি আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন, ০১টি প্রিন্টার, রোগী দেখার স্টেথিস্কোপ-০১টি, ০১টি ভূয়া অটোসীল, ০১টি স্ফেগমোম্যানোমিটার জব্দ করা হয়।
গ্রেফতারকৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায় মোঃ জহিরুল ইসলাম এর বাড়ি কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া থানাধীন বেজোড়া এলাকায়। সে দীর্ঘদিন নিজেকে বিশেষজ্ঞ এমবিবিএস ডাক্তার পরিচয় দিয়ে “কুমিল্লা ডায়াগনিস্টিক কমপ্লেক্সে (সিডি কমপ্লেক্সে)” এ নিয়মিত রোগী দেখা এবং রোগীদের বিভিন্ন ডাক্তারী পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট তৈরী করে আসছে। সে তার নামের পাশে ডাক্তারী ডিগ্রী হিসেবে নিজেকে ডাঃ মোঃ জহিরুল ইসলাম, এমবিবিএস, পিজিটি (মেডিসিন এন্ড গাইনী), সিএমইউ (ডিইউ), ডিএমইউ (ডিইউ), (সনোলজিস্ট) মেডিসিন, মা, শিশু, চর্ম ও যৌন রোগের অভিজ্ঞ চিকিৎসক “কুমিল­া ডায়াগনিস্টিক কমপে­ক্স (সিডি কমপ্লেক্সে)” চাঁন সুপার মার্কেট ৩য় তলা, মুক্তি স্বরণী, চিটাগাংরোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ নামে আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট ও প্রেসক্রিপশন ফরমে উল্লেখ করেছে। র‍্যাবের অভিযানিক দল নিবন্ধনকৃত চিকিৎসক হিসেবে তার এমবিবিএস ডাক্তারী সনদ ও বিএমডিসি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেখতে চাইলে সে কোন এমবিবিএস ডাক্তারী সনদ ও বিএমডিসি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেখাতে পারেনি। জিজ্ঞাসাবাদে সে আরো জানায় স্থানীয় স্কুল হতে ১৯৯০ সালে এসএসসি এবং ১৯৯৩ সালে স্থানীয় কলেজ থেকে ২য় বিভাগ পেয়ে এইচএসসি পাস করে। সে মূলত “মেডিক্যাল এ্যাসিসটেন্ট’ হিসেবে কাজ করত। ২০০৩ সালে প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকা দিয়ে একটি নকল ভারতীয় এমবিবিএস/এএম সার্টিফিকেট ক্রয় করে এবং তা ব্যবহার করে রোগীদের সাথে প্রতারণা করে আসছিল। সে দীর্ঘদিন যাবৎ নিজেকে এমবিবিএস ডাক্তার ও (সনোলজিস্ট) মা, শিশু, চর্ম ও যৌন রোগের অভিজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে পরিচয় দিয়ে অনুমোদনবিহীন “কুমিল্লা ডায়াগনিস্টিক কমপ্লেক্সে (সিডি কমপ্লেক্সে)”এ রোগীদের প্রেসক্রিপশন ও আল্ট্রাসনোগ্রামসহ অন্যান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং মনগরা রিপোর্ট তেরী করে আসছিল।
গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।