দিনে মাদক বিক্রি রাতে পুলিশে সোর্স

443

বন্দর প্রতিনিধিঃ নারায়নগঞ্জ বন্দরে মাদক ব্যবসার প্রধান হোতা বাবু শিকদার ওরফে সোর্স বাবুর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী। বন্দর ছালেনগর, বাড়ইপাড়া, শাহী মসজিদ, কলা বাগঝাউ তলাসহ বিভিন্ন এলাকায় মাদকের স্বর্গ রাজ্যে পরিনত করেছে বলে অভিযোগ এলাবাসীর। এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানিয়েছে, বন্দর ছালেনগর এলাকার মৃত মজিদ শিকদারের ছেলে বাবু শিকদার ওরফে সোর্স বাবু প্রশাসনের নাকের ডগায় এক ঝাক মাদক ব্যবসায়ী লালন করে দেদারসে মাদকের রমরমা বানিজ্য করে আসছে। রাতের বেলায় পুলিশের সোর্স হিসেবে বন্দর থানার একাধিক দারোগার সাথে তাকে গাড়িতে দেখা যায়। রহস্য জনক কারনে পুলিশ তার অপকর্ম জেনেও নিরব ভূমিকা পালন করছে। এমন কি পুলিশের বিশেষ অভিযানেও গাড়ী বহরে সোর্স হিসেবে তাকে দেখা যায়।
তথ্য মতে,ছালেনগর এলাকার বাবু শিকদার ওরফে সোর্স বাবু মহানগর যুবদলের নয়া কমিটিতে ত্রান বিষয়ক সম্পাদক মনোনীত হন। কিছু দিন পূর্বে বিএনপির প্রতিস্ঠা বার্ষিকীতে বাবু শিকদার খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই লেখা সম্বলিত কালো কাপড় মূখে বেধে র্যালীতে অংশ গ্রহন করতেও দেখা যায়। ইতিপূর্বে এই বাবু শিকদার বিএনপির ভাঙ্গচুর মামলার ওয়ারেন্টে বন্দর থানা পুলিশ গ্রেফতারও করেছিল। পরে একদিন পরেই জামিনে এসে পুলিশের সাথে দেখা যায়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক মানবাধিকারকর্মী জানান, বাবু শিকদার একজন বিএনপির লোক হয়ে কিভাবে পুলিশ তাকে নিয়ে গাড়িতে করে ঘুরে বেড়ায় আমার বোধগম্য হয় না। প্রশাসনিক অনেক গোপনীয় তথ্যও সহজেই পাচার হয়ে যায় এটা বুঝার আর বাকি থাকে না। আর বাবু শিকদার পুলিশের ভয়ে একবার দেশও ত্যাগ করেছিল। বন্দর থানার কতিপয় স্বার্থাম্বেসী দারোগা মাদক ব্যবসায়ী সোর্স বাবুকে মটর সাইকেলে নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। আশা করব বন্দর থানা পুলিশের শুভ বুদ্ধির উদয় হোক।

সোর্স বাবু শিকদারের রোশানল থেকে পরিত্রান পেতে এলাকাবাসীসহ সচেতনমহল নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদের হস্তক্ষেপ কামনা করছে ।