চাঞ্চল্যকর গণধর্ষণ মামলার এজাহারভূক্ত প্রধান আসামীসহ দুইজন গ্রেফতার

347

সময়ের চিন্তা ডট কমঃ র‍্যাবের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার চাঞ্চল্যকর গণধর্ষণ মামলার এজাহারভূক্ত প্রধান আসামীসহ দুইজন গ্রেফতার। র‍্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন-শৃক্সখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিভিন্ন অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য র্যাাব ফোর্সেস নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে ধর্ষণের মত মানবতা বিধ্বংসী অপরাধ সমাজে ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। উক্ত অপরাধ দমনের লক্ষ্যে র্যা ব অত্যন্ত পেশাদারিত্বের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেফতার ও আইনের আওতায় আনার জন্য সর্বাত্মক অভিযান পরিচালনা করে আসছে।
এরই ধারাবাহিকতায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল অদ্য ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে ভোরে টাংগাইল জেলার এলেঙ্গা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ফতুল­া থানার বহুল আলোচিত ও চাঞ্চল্যকর গণধর্ষণ মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামী ১। মোঃ আব্দুল কাদের শাš—(১৯), পিতা- মৃত এসএম সামাদ, সাং-ধাপাইদ্দাদপুর, থানা-ফতুল­া, জেলা-নারায়ণগঞ্জ ও তার সহযোগী
আবু বক্কর সিদ্দিক @শুভ(২৩), পিতা- মৃত মিজান, সাং-ধাপাইদ্দাদপুর, থানা-ফতুল্লা, জেলা-নারায়ণগঞ্জদেরকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বির“দ্ধে ভিকটিমের মা বাদী হয়ে গত ২৯ আগস্ট ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল­া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০(সংশোধনী-২০০৩) মোতাবেক একটি মামলা দায়ের করেন, যার মামলা নং-৯৪ তারিখ ২৯/০৮/২০১৯।
গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ, মামলার এজাহার পর্যালোচনা ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায় ভিকটিম ১৫ বছরের একজন অপ্রাপ্তবয়স্ক বালিকা। ভিকটিম তার পরিবারের সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানাধীন ফতুল্লা রেলষ্টেশন এলাকায় বসবাস করে আসছে। ভিকটিমের মা একটি প­াস্টিক কারখানায় কাজ করে। ঘটনার দিন গত ২৮ আগস্ট ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে রাত ২০৩০ ঘটিকার সময় ভিকটিম সরিষার তেল ক্রয় করার জন্য একা তার বাসার পাশর্¡বর্তী মুদি দোকানে যায়। ঐসময় ভিকটিমের পূর্ব পরিচিত মোঃ রাজন তাকে জোরপূর্বক ফতুল্লা রেলষ্টেশনস্থ জোড়াপোল বালুর মাঠের নির্জন ও অন্ধকারাচ্ছন্ন স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে রাজন, শুভ, শান্ত ও অজ্ঞাত আরো ২/৩ জন মিলে ভিক্টিমকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করে। ধর্ষনের পর এ ব্যাপারে কাউকে কিছু না বালার জন্য ভিক্টিমকে হুমকি দিয়ে বাড়ী পাঠিয়ে দেয়। ভিকটিমের মা বাড়ীতে এসে বিষয়টি জানার পর ফতুল্লা থানায় গিয়ে মামলা র“জু করে। বর্ণিত ঘটনার প্রেক্ষিতে র‍্যাব-১১ এর একটি বিশেষ আভিযানিক দল ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন, জড়িত আসামীদের সনাক্তকরণ ও তাদের গতিবিধি নজরদারী করাসহ উক্ত ঘটনার মূলহোতা রাজনসহ শুভ, শান্ত ও অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার করার লক্ষ্যে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। বেশ কয়েকটি স্থানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করার পর অদ্য ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে ভোরে টাংগাইল জেলার এলেঙ্গা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর গণধর্ষণ মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামী মোঃ আব্দুল কাদের শান্ত ও অপর সহযোগী আবু বক্কর সিদ্দিক @শুভ’কে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানায় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।