উত্তেজিত হয়ে উঠেছে কাশিপুর ইউনিয়ন  বিভিন্ন ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতারা

488

সময়ের চিন্তা ডট কমঃ ক্রমেই উত্তেজিত হয়ে উঠেছে কাশিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বিভিন্ন ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতারা। বিভিন্ন ওয়ার্ডে পরীক্ষিত ও ত্যাগী নেতাদের পরিবর্তে বহিরাগত বিএনপি/জামাত জোটের নেতাদের দিয়েই সাজানো হয়েছে কয়েকটি ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের কমিটি।

পুরো জেলায় প্রায় ৩৯টি ইউনিয়ন রয়েছে। আর প্রতিটি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে থানা কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের দিক নির্দেশনায় চলে রাজনৈতিক কর্মকান্ড। জেলার প্রতিটি ইউনিয়নের বঙ্গবন্ধু এবং শেখ হাসিনার আদর্শের আওয়ামীলীগের রাজনীতি হলেও কেবল ব্যতিক্রম শুধুমাত্র কাশিপুর ইউনিয়নে।

অথ্যাৎ মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের অবমুল্যায়ন এবং তাদের সুখ-দুঃখের ভাগিদার না হলে নিজের মনমত অনুপ্রবেশকারীদের দিয়েই চলছে আওয়ামীলীগের রাজনীতির হালচাল। অবৈধ টাকার জোড়ে বহিরাগতরা ওয়ার্ডে সভাপতি-সাধারন সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকসহ মুল্যবান পদে আসীন হলে দীর্ঘ দিন যাবত মাঠে থানা ত্যাগী নেতাকর্মীরা হচ্ছেন অবহেলিত।

আবুল হোসেন,মজিবর,সোলাইমানসহ অনেক আওয়ামীলেিগর নেতাকর্মী জানান,২০০১ সালে বিএনপি জামাত জোট ক্ষমতায় আসার পরেই সাবেক সাংসদ গিয়াসউদ্দিন আহমেদের অথ্যায়নে ১৯৯৬ সাল থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকা ১৯ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে বিস্ফোরন মামলা দায়ের করা হয়। প্রায় ৮ বছর হাজিরা শেষে সেই মামলা থেকে রেহাই পায় উক্ত আসামীরা।

সাংসদ শামীম ওসমান এ মামলার বিষয় নিয়ে উজির আলী স্কুলে বেশ কয়েকবার বলেছিলেন যারা সেই মামলায় আসামী হয়েছিলেন দল তাদেরকে অবশ্যই মুল্যায়ন করবে। কিন্তু সাংসদ শামীম ওসমানের সেই কথাগুলোকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম.সাইফুল্লাহ বাদল দলীয় নেতাকর্মীকে অবমুল্যায়ন করে সামান্য টাকার লোভে বিএনপির নেতাদেরকে বিভিন্ন ওয়ার্ডে সভাপতি/সাধারন সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নিযুক্ত করেছেন।

শুধু তাই নয়, কাশিপুর ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবে এখনও সভাপতি হিসেবে রয়েছেন ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মো.দুলাল মিয়া। তিনি এখনও বেচে রয়েছেন কিন্তু তারস্থলে বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দ্বায়িত্বে রয়েছে পরিবহন নেতা এম.সাইফুল্লাহ বাদলের ‘সোনার ডিম’ হিসেবে পরিচিত আইউব আলী। সংগঠনের আইন  অনুযায়ী সভাপতি মারা গেলে কিংবা রাজনীতি থেকে সরে দাড়ালে সেক্ষেত্রে সহ-সভাপতিই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করবেন।