জঙ্গি সংগঠন জেএমবি’র ৪ জন সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার, ল্যাপটপসহ উগ্রবাদী বই ও লিফলেট উদ্ধার

368

‌আশিকুজ্জামান, সময়ের চিন্তা ডট কমঃ র‌্যাবের অভিযানে ফেনী সদর হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবি’র ০৪ জন সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ও ল্যাপটপসহ বিপুল পরিমাণ উগ্রবাদী বই ও লিফলেট উদ্ধার করে। প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে র‌্যাব-১১ জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ এর বিরুদ্ধে আপোষহীন অবস্থানে থেকে নিরলসভাবে কাজ করে আসছে। ২০১৮-২০১৯ বছরে র‌্যাব-১১ কর্তৃক বেশ কয়েকটি সফল জঙ্গিবিরোধী অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এ সকল অভিযানে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাসহ ১২০ জন বিভিন্ন পর্যায়ের সদস্য ও পলাতক আসামীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। বিভিন্ন অভিযানে গ্রেফতারকৃত এ সকল জঙ্গিদেরকে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের নেটওয়ার্ক এবং কার্যক্রমের অনেক তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। প্রাপ্ত সে সকল তথ্যাদি যাচাই-বাছাই ও বিশ্লেষণের পর জঙ্গি কার্যক্রমে সম্পৃক্ত যে সকল সদস্য এখনও গ্রেফতার হয়নি তাদেরকে আইনের আওতায় আনার জন্য অব্যাহতভাবে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

এরই ধারাবাহিকতায় গোপন সূত্রে প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল গত ২৭ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ দিবাগত রাতে ফেনী জেলার সদর থানাধীন মায়ানিবাস, পশ্চিম বিজয়শিং ও সিলোনিয়া হাজির বাজার এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনাকরে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির ০৪ জন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো ১। মোঃ সাইফুল­াহ(৩৫), ২। মোঃ মাহাদী @মেহেদী হাসান @ দাউদ(৩০), ৩। আজিজুল হক(৪১) ও ৪। ইদ্রিস(৪০)। এ সময় তাদের নিকট থেকে বিপুল পরিমাণউগ্রবাদী বই, উগ্রবাদী লিফলেট, ল্যাপটপ ও হার্ডডিস্ক উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ ও অনুসন্ধানে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃতরা নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামা’আতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) এর সক্রিয় সদস্য ও দাওয়াতী শাখার সমন¡য়কারী। তারা ১৯৯৯ সাল হতে ২০০৩ সাল পর্যন্ত জঙ্গী সংগঠন হারকাতুল জিহাদ (হুুজি) করত। পরবর্তীতে জেএমবির আধ্যাত্মিক নেতা আতিকুল­াহ’র মাধ্যমে তারা জেএমবি’তে যোগদান করে। জেএমবি’তে যোগদানের পর নারায়ণগঞ্জসহ দেশেরে বিভিন্ন অঞ্চলে জেএমবি’র সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করে আসছিল। তারা অনলাইন হতে উগ্রবাদী বই ও ভিডিও ডাউনলোড করতঃ বিতরণ করে জেএমবি’র সদস্য সংগ্রহের লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দাওয়াতি শাখার কাজ করে আসছিল। তারা নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা ও এর আশে পাশের বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকবার বৈঠকে মিলিত হয়। গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে আরোওজানা যায় যে, তারা দীর্ঘদিন যাবৎ গোপনে সংগঠিত হয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন জেএমবি’র কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে এবং আইন শৃংখলা বাহিনীর উপর হামলার ও জেল হতে আটককৃত জেএমবি’র সদস্যদের মুক্ত করার পরিকল্পনা এবং সংঘঠনের জন্য তহবিল সংগ্রহ করে বিভিন্ন ধরণের নাশকতামূলক কর্মকান্ড করার অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

গ্রেফতারকৃত ১। মোঃ সাইফুল­াহ, ২। মোঃ মাহাদী @মেহেদী হাসান @ দাউদ,৩। আজিজুল হক ও ৪। ইদ্রিস, র‌্যাব-১১ কর্তৃক দায়েরকৃত ফতুল­া থানায় সন্ত্রাস বিরোধী (জঙ্গী) মামলার পলাতক আসামী। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা স্বীকার করে তারা দীর্ঘদিন যাবৎ গোপনে সংগঠিত হয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন জেএমবির কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে এবং নাশকতা মূলক কর্মকান্ড করার অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।