উগ্রবাদ নির্মূল করে শান্তিময় বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব-স্পীকার

271

সময়ের চিন্তা ডট কমঃবাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি বলেছেন, উগ্রবাদ বৈশ্বিক সমস্যা- যা সভ্যতা ও মানবতার শত্রু। আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পর্যায়ে এক সাথে কাজ করে উগ্রবাদ নির্মূল করে শান্তিময় বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।

তিনি আজ রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টার বসুন্ধরায় কাউন্টার টেররিজম এ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম এবং স্টপ ভায়োলেন্স কোয়ালিশন সেক্রেটারিয়েট, রুপান্তর এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত “উগ্রবাদ বিরোধী জাতীয় সম্মেলন-২০১৯” এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসকল কথা বলেন।
স্পীকার ড.শিরীন শারমিন চৌধুরী জাতীয় সঙ্গীতের সাথে পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে সম্মেলনের বর্ণাঢ্য আয়োজনের শুভ উদ্বোধন করেন।অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার এবং জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পো বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম বিএমপি (বার), পিপিএম (বার)।
এধরনের সম্মেলন আয়োজনের জন্য স্পীকার বাংলাদেশ পুলিশের কাউন্টার টেররিজম এ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দিতে হবে উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদের সতর্ক বার্তা।

স্পীকার বলেন, জনসচেতনতা বৃদ্ধি করে সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। পারিবারিক পর্যায় থেকে শুরু করে প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
তিনি বলেন, জঙ্গী অর্থায়ন বন্ধ করে উগ্রবাদ নির্মূল করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উগ্রবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। উগ্রবাদীরা যাতে এদেশের মাটিকে ব্যবহার করতে না পারে সেজন্য সকলে সতর্ক থাকতে হবে। সমষ্টিগতভাবে উগ্রবাদ তৈরীতে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, কোনো মানুষ সন্ত্রাস বা উগ্রবাদী হয়ে জন্মগ্রহণ করে না। অনিষ্পন্ন বিরোধের দীর্ঘসূত্রিতা পরিত্যাগ করে আলোচনা ও সমঝোতার মাধ্যমে সন্ত্রাসবাদ কমিয়ে আনা সম্ভব। উগ্রবাদীদের জাতি-ধর্ম-দেশ নাই উল্লেখ করে স্পীকার বলেন, উগ্রবাদ সকল উন্নয়নকে ম্লান করে দিতে পারে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করে সমাজ থেকে উগ্রবাদ নির্মূল সম্ভব বলে তিনি উল্লেখ করেন।
পরে স্পীকার উগ্রবাদ বিরোধী জনসচেতনতা বিষয়ক বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ পুলিশের কাউন্টার টেররিজম এ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ ও সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।