নিজের ঘরে শুদ্ধি অভিযান শুরু,একদিনে বদলি ৪৩

398

নিজস্ব প্রতিবেদকনবাগত এসপি মোহাম্মদ জায়েদুল আলম নিজের ঘরে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে একই অবস্থানে থাকা পুলিশ কর্মকর্মতাদের মধ্যে প্রথম দফায় ৪৩ জনকে রদবদল করা হয়েছে। জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের অভিযোগের প্রতি আস্থা রেখে তিনি এই রদবল করছেন বলে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে। তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলাকে সকল প্রকার পুলিশী হয়রানী থেকে ‍সাধারন মানুষকে মুক্ত করতে এই পদক্ষেপ নিয়েছেন। প্রথমেই তিনি পুলিশে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনবেন এবং পর্যায়ক্রমে তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলাকে সকল প্রকার অপরাধ মুক্ত করার কাজে হাত দিবেন এমন তথ্য জানিয়েছে পুলিশের একটি সূত্র।

জেলা পুলিশ অফিস সূত্র জানায়, ১ জন পরিদর্শক, ২২ জন উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) এবং ২০ কনস্টেবলসহ ৪৩ জনকে বদলি করেন। এর মধ্যে সোনারগাঁয়ে ১১, রূপগঞ্জে ১৩, ফতুল্লায় ৭, সিদ্ধিরগঞ্জে ১, সদরে ২ এবং বন্দরে ৩ জন, ও আড়াইহাজারে ৬ জনকে বদলি করা হয়েছে।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার মনিরুজ্জামান বলেন, কোন রকম অভিযোগ নয় এই বদলি রুটিন মাফিক হয়েছে। যারা বদলি হয়েছে-এস আই মাসুদ রানা, আবুল কালাম আজাদ, রাজু মন্ডল, হাবিব, তাহিদুল্লাহ ও আপন কুমার মজুমদার। এ এস আই নারায়ন ভোমিক, নাজমুল হুদা, হাওলাদার ওমর, শাহীন উল্লাহ ও মিজানুর রহমান।

রূপগঞ্জ থানার ১৩জন বদলি হয়েছে, এস আই ৬ জন ও এ এস আই ৭ জন।

ফতুল্লা মডেল থানায় ৭জন, সদর মডেল থানায় ১জন, সিদ্দিরগঞ্জ থানায় ১জন,বন্দর থানায় ৩জন,  আড়াইহাজার ৭জন বদলি হয়েছে।

নারায়নগঞ্জ জেলায় যোগদানকারী পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম জানান, বদ‌লি রু‌টিন ওয়ার্ক। দেখা যাচ্ছে প্রয়োজনের তুলনায় কিছু কিছু থানায় অতিরিক্ত অফিসার রয়েছে কিন্তু সে তুলনায় ডিবি, ডিএসবিতে লোক সঙ্কট। তাই থানা থেকে লোক সরিয়ে এনে যেখানে সঙ্কট রয়েছে সেখানকার ঘাটতি পূরণ করা হবে। যাদের বদলী করা হয়েছে তাদের কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। এই বদলী পুলিশের চলমান প্রক্রিয়া।

বুধবার (১ জানুয়ারি) বিকেলের দিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের নবাগত পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই বদলীর আদেশ দেওয়া হয়েছে।তবে ৭ থানার অফিসারদের মধ্যে বদলি আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানা যায়।