উচ্ছেদ অভিযানের পর সরকারি জমি স্কুলকে হস্তান্তর

276

স্টাফ রিপোর্টারঃ শহরের ডন চেম্বার এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।এ সময় অভিযানের মাধ্যমে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পারিবহন কর্পোরেশন(বিআইডব্লিউটিসি) জাহাজ কর্মচারি বিশ্রামাগার সাইনবোর্ড টাঙ্গানো একটি সরকারি জায়গাটি উদ্ধার করা হয়।

২২.০১.২০ তারিখ বুধবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব সেলিম রেজার নেৃতৃত্বে এবং নারায়ণগঞ্জ সদর এসিল্যান্ড হাসান বিন আলীর পরিচালনায় এ উচ্ছেদ অভিাযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযান পরিচালনা করা কালে নারায়ণগঞ্জ সদর এসিল্যান্ড হাসান বিন আলী বলে, এই জায়গাটি জেলা প্রশাসনের। বিআইডব্লিউটিসি কোন বলে জায়গাটি দখলে আছে তার একটি নোটিশ পাঠিয়েছি। এ বেপারে তারা কোন কাগজপত্র নিয়ে আমাদের সাথে বসেনি।

হাসান বনি আলী আরো বলে, এখানে কোন লোক থাকেন না। কিন্তু ভবনের ভিতরে বিভিন্ন ধরনের অপকর্ম হয়। এই ভবনে গাজা সেবন থেকে শুরু করে মাদক গ্রহন করে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি রাতে বহিরাগত লোকদের আসা যাওয়া হয়। কালেক্টরেট পাবলিক স্কুলের যথেষ্ঠ সুনাম রয়েছে। পাশাপাশি এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বারছে। কিন্তু তাদের জায়গার অভাব থাকায় ভবন করতে পারছে না। তারা জায়গাটি তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য জেলা প্রশাসকরে নিকট আবেদন করে। একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশে এই ধরনের কার্যক্রম চলে এটা শহরাবাসি চায় না। তাই আমরা জায়গাটি উদ্ধার করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের দখলে বুঝিয়ে দিয়েছি।

কালেক্টরেট পাবলিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক শাহান আক্তার বলে, এখানে কোন লোক বসবাস করে না। মাদকাসক্ত লোক আসা যাওয়া করে। আমাদের স্কুলের আসবাবপত্র চুরি হয়। সেই সাথে এই স্কুলটা বর্ধিত করা প্রয়োজন তার জন্য আমরা ডিসি স্যার বরাবর জায়গার আবেদন করি। তখন তিনি বলেন আপনাদের পাশের জায়গাটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে আছে। পাশের ভবনের লোকদের কারনে আমাদেন অনেক ডিষ্ট্রাব হয়। এই জায়গাটি আমাদের দিলে ছাত্র ছাত্রীদের জন্য অনেক ভালো হয়।

জেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দাকার জাকির হোসেন চুন্নু বলে, তারা কোন ধরনের নোটিশ প্রদান না করে এ জায়গা তালা দিবে এটা হতে পারে না। আমাদের জাহাজী শ্রমিকরা এখানে থাকে। এই ভাবে তারা জায়গা দখল করতে পারে না। এসময় প্রশাসনের লোকদের বাধা প্রদানের চেষ্টা করে তারা।

উচ্ছেদ অভিযানে ভবন থেকে ২২ টি চৌকি,৩ টা ফ্যান,১ টি টিভিসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র জব্দ করা হয়। পরে জায়গার ভিতরে প্রবেশ করতে প্রধান ফটকে তালা জুলিয়ে দেয়া হয়। একই সাথে কালেক্টরেট পাবলিক স্কুলের ব্যানার টানিয়ে দেয়া হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলো, বিআইডব্লিউটিসির এজিএম ফিরোজ শেখ, প্রশাসন ম্যানাজার সালমা শিরিন চৌধুরী, কালেক্টরেট পাবলিক স্কুলের সহকারি শিক্ষিকা নন্দীতা প´ী,রাবেয়া খন্দকার,মাধবী গণ, সুমি আক্তার, সুলতানা, আহমেদ,লুমত কুলসুম, স্মৃতি দেবনাথ, অংকন শিক্ষক ডালিয়া আক্তার, সংগীত শিক্ষক মিনহাজ তাবু বিথী রাণী দে প্রমুখ।