করোনা মোকাবেলায় মৃত্যুভয় উপেক্ষা করে সামনের সারিতে কাজ করছে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী

295

সময়ের চিন্তা ডট কমঃ দেশে বর্তমানে করোনা ভাইরাস (কোভিট-১৯) মোকাবেলায় মৃত্যুভয় উপেক্ষা করে সামনের সারিতে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী। লকডাউনে মানুষের বাড়ী বাড়ী যেয়ে খাদ্য সমগ্রী পৌছে দেওয়া থেকে শুরু করে, সামাজিক দুরুত্ব নিশ্চিত করা, করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু বরণকারীর লাশ দাফন করছে এই পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা। দেশের ক্রান্তিলগ্নে সর্ব সময়ে বাংলাদেশ পুলিশ সাহসীকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে।

দেশ মাতৃকার সেবা করতে করতে ইতোমধ্যে পুলিশ বাহিনীর অকুতোভয় সৈনিকের প্রায় ১৫০০ জন কোভিট-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছে। তবুও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও পুলিশ বাহিনীর প্রধান আইজিপি মহোদয়ের দ্বিক-নির্দেশনায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন চৌকশ এই বাহিনীর সদস্যরা। ইতিমধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে জীবন দিয়েছেন পুলিশ বাহিনীর ৭ জন সম্মুখযোদ্ধা।

কোভিট-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধে সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার ২০০০ (দুই হাজার) ডাক্তার নিয়োগ দিয়েছেন। কিন্তু বর্তমান সময়ে জন-মানুষের কাছে ভয়ংকর কোভিট-১৯ এর মোকাবেলায় নিয়োজিত সামনের সারির যোদ্ধা পুলিশ বাহিনীর কনস্টবল হতে এসআই পর্যন্তরা পদোন্নতি পাওয়ার আশা হৃদয়ে ধারন করে দেশের সেবায় কাজ করছেন। যদিও কোন এক অজানা কারনে তাদের পদোন্নতির ফাইলটি আটকে আছে, যা তাদের কাছে খুবই দুঃজনক ও হতাশার কারন হয়ে দাড়িয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সারা দেশের বহু নিম্ন-পদস্হ পুলিশ কর্মকর্তারা এই পদোন্নতির বিষয়ে বলেছেন, এই পদোন্নতি তাদের প্রাপ্য, তাদের পরিশ্রম ও সততার পুরস্কার। কিন্তু তারা পদোন্নতি না পাওয়ায় খুবই হতাশ এবং বেদনাহত। তারা এই পদোন্নতির বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল ও আইজিপি বেনজীর আহমেদ এর বিশেষ অনুকম্পা ও সহানুভুতি বিনীতভাবে কামনা করেছেন।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় বর্তমান সময়ের সামনের সারির সাহসী বীর পুলিশ যোদ্ধাদের পদোন্নতি প্রদান করলে তারা মানষিকভাবে উজ্জীবিত হয়ে আরো পরিশীলিত ও সুচারুুরপে দেশ ও জাতির সেবায় নিজেদের আত্মনিয়োগ করতে পারবে বলে দেশের সচেতন মহল মনে করেন।

পুলিশ বাহিনীর আটকে থাকা পদোন্নতির ফাইল গুলোর বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বিভাগীয় পদোন্নতি পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের পদোন্নতির বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহন এখন সময়ের দাবি।

করোনার এই দূর্যোগের সময় পুলিশের মাঠ পর্যায়ে কর্মরত নিম্ন-পদস্হ পুলিশ সদস্যদের স্বাস্হ্যগত নিরাপত্তা ও তাদের প্রাপ্য পদোন্নতি দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রদান করা গেলে তারা ফিরে পেতে পারে হারানো মনোবল এবং এই ভিতীকর পরিবেশেও বিরত্বের ছাপ রাখাদের কর্মের মূল্যায়ন দেশবাসির কাছে প্রশংসিত এক বিশেষ পদক্ষেপ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে বিধায় পদোন্নতির বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ে ও আইজিপি মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন দেশের সাধারন মানুষ।