লালমনিরহাটে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ও আগুন লেগে এক শিশুসহ ২ জনের মৃত্যু

245

এস এম আলতাফ হোসাইন সুমন, লালমনিরহাট থেকেঃ লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা উপজেলায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে  লিংকন নামের পাঁচ বছরের এক শিশু, গ্যাসের চুলা থেকে আগুন লেগে শাহিনা বেগম (৩৫)  মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন তার মা-বাবা। তারা চিকিৎসাধীন।

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশুটি মারা যায় । এর আগে বুধবার (২৮ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলা ডাকবাংলা ভবনের পাশের বাসায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে সাইফুল ইসলাম (৩৫), তার স্ত্রী লায়লা বেগম (২৫) ও সন্তান লিংকন দগ্ধ হয়।

স্থানীয়রা জানায়, বুধবার (২৮ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে রান্নার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন লায়লা বেগম। হঠাৎ গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হলে বিকট শব্দে তারা তিনজন ছিটকে পড়ে যায়। এ সময় তাদের শরীরে আগুন ধরে যায়। শিশুটির শরীরের ৫৫ শতাংশ দগ্ধ হয়। পরে তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এসে উদ্ধার করে। প্রথমে আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসক রংপুরে রেফার্ড করেন। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেলে শিশুটি মারা যায়। কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রবিউল হাসান ঢাকা পোস্টকে বলেন, শিশুসহ তার মা-বাবা দুজনের শরীর পুড়ে গেছে। শিশুটির বাবা সাইফুল ডাকবাংলোর কেয়ারটেকার। কালীগঞ্জ ফায়ার স্টেশনের (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা আবু তাহের ঢাকা পোস্টকে বলেন, ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। সে সময় তাদের হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনাটি তদন্ত করা হয়েছে। গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।

এ দিকে জেলার হাতীবান্ধা উপজেলায় গ্যাসের চুলায় রান্না করতে গিয়ে পরনের কাপড়ে আগুন লেগে শাহিনা বেগম (৩৫) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার সিঙ্গিমারী ইউনিয়নের দক্ষিণ গড্ডিমারী গ্রামের ৪ নং ওয়ার্ডে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহিনা বেগম ওই এলাকার মৃত আবু সাঈদের মেয়ে ও আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ি ইউনিয়নের কুমরিরহাট এলাকার আইয়ুব জাহিদ কমলের স্ত্রী। স্থানীয়রা জানায়, স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে বাবার বাড়ি বেড়াতে এসে বিকেলে গ্যাসের চুলায় রান্না বসান শাহিনা বেগম।এ সময় তার অসাবধানতার কারণে চুলার আগুন পড়নের কাপড়ে লাগে। বাড়িতে অন্য কেউ না থাকায় এবং স্বামী পাশের রুমে ঘুমে থাকায় ওই আগুনে গোটা শরীর পুরে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় শাহিনার। শাহিনা বেগমের একটি হাত আগে থেকে অচল ছিল। হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলম এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলে, মৃত দেহ ময়নাতদন্তের জন্য লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।