দীর্ঘ ১০ বছর পর সোনারগাঁয়ে নৌকা পেয়ে উল্লাসিত নেতাকর্মীরা-বঞ্চিতদের মাঝে বিষাদের ছায়া

108

মোঃ মোক্তার হোসাইন:দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-(৩) আসনে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক সাংসদ ও সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল কায়সার।

রবিবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের দলীয় কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে নারায়ণগঞ্জ(৩) আসনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে আব্দুল্লাহ আল কায়সারের নাম ঘোষনা করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

নাম ঘোষনার পর পুরো সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মাঝে আনন্দের জোয়ার বইছে। তবে অন্যান্য মনোনয়ন বঞ্চিতদের মাঝে, ও তাদের সমর্থিত আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে বইছে বিষাদের ছায়া।

সংশ্লিষ্ঠ সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালে নৌকা প্রতীক পেয়ে সোনারগাঁ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুল্লাহ আল কায়সার। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে তার আপন চাচা সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত মোশারফ হোসেনকে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়।

পরবর্তীতে মনোনয়ন দেওয়ার তিনদিন পর তাকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়া হয়।
সেই সময় তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিলে জাতীয় পার্টিকে এ আসনটি ছেড়ে দেওয়া হয়। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় সোনারগাঁ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য,
ঢাকা বিভাগীয় অতিরিক্ত মহাসচিব ও জাতীয় সেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি লিয়াকত হোসেন খোকা।

২০১৮ সালেও দ্বিতীয় দফায় লিয়াকত হোসেন খোকা পূনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
দীর্ঘ ১০ বছর পর এ আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। বিগত ১০ বছর যাবত আওয়ামী লীগের ১৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশীর সমর্থিত নেতাকর্মীরা পৃথকভাবে এ আসনে দলীয় প্রতীক নৌকা দাবি করে আসছিলেন। দীর্ঘ অপেক্ষার পর অবশেষে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আব্দুল্লাহ আল কায়সারকে নৌকা প্রতীক মনোনয়ন দেওয়া হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা-কর্মী জানায়, এবারের দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে সোনারগাঁ উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগের ১৫ জন নেতা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। মনোনয়নপত্র সংগ্রহের আগে থেকেই দলীয় প্রার্থীর নির্দেশনায় তাদের সমর্থিত আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ভিন্ন ভিন্ন ভাবে দলীয় কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন। আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল্লাহ আল কায়সারকে প্রদান করায় মনোনয়ন বঞ্চিত ১৪ জন নেতা ও তাদের সমর্থিত নেতাকর্মীদের মাঝে নেমে এসেছে বিষাদের ছায়া।

সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম বলেন, আমাদের দলে কোন কোন্দল নেই। দলীয় বিভিন্ন প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রতিযোগিতা ছিল। সেই প্রতিযোগিতায় সাবেক সাংসদ আব্দুল্লাহ আল কায়সার নৌকা প্রতীক পেয়েছেন। সবকিছু সঠিকভাবে হলে এ আসনে সকল নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করা হবে।

নৌকা প্রতীকের মনোনীত প্রার্থী সাবেক সাংসদ আব্দুল্লাহ আল কায়সার বলেন, ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগের টিকিটে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী অধ্যাপক রেজাউল করিমকে পরাজিত করে নির্বাচিত হয়েছি। এ মনোনয়ন তৃণমূল আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী ও সোনারগাঁবাসীর জন্য প্রাথমিক বিজয়। সোনারগাঁবাসীর দীর্ঘ ১০ বছরের অপেক্ষার পালা শেষ হয়েছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন আমাকে প্রদান করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।