বেপরোয়া হযরত বাহিনীর বিরুদ্ধে থানায় আরো একাধিক অভিযোগ

95

এম হোসাইন:নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের বারদী ইউনিয়নের আলগীর চর গ্রামে হযরত আলী ওরফে হযরত ডাকাত বাহনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী। গত পাঁচদিনে হযরত বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে সোনারগাঁ থানায় পাঁচ ব্যাক্তি চাঁদা দাবি, মারধরসহ বিভিন্ন অপকর্মের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে সোনারগাঁ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগের তদন্তে সোনারগাঁ থানা কর্তৃক অপকর্মের সত্যাতাও পেয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। এর আগে হযরত আলী ও তার বাহিনীর লোকজন ডাকাতি, চুরি ও মাদক ব্যবসায়ে অভিযুক্ত হয়ে একাধিকবার জেলও খেটেছে। এমনকি স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলীও হযরত আলী ও তার বাহিনীর অপকর্মের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে গত দুই মাস আগে অভিযোগ দায়ের করেছেন। সোনারগাঁ থানায় ব্যবসায়ী সাদেকুর রহমান, জসীম উদ্দিন ও মো. সাহাবউদ্দিন, মো হুমায়ুন কবির, এবং আনোয়ার বাদি হয়ে পাঁচটি অভিযোগ দায়ের করেন।

সোনারগাঁ থানায় দায়ের করা অভিযোগ থেকে জানা যায়, উপজেলার আলগীর চর গ্রামের বিল্লাল মিয়ার ছেলে ব্যবসায়ী সাদেকুর রহমানের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন অপকর্মের বাধা দিতে গিয়ে শত্রুতা চলছিল। এ শত্রুতার জের ধরে গত বুধবার রাতে মিলন মিয়ার দোকানের সামনে তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে হযরত আলী ডাকাতের নেতৃত্বে মো.আমিন, রাব্বী সরকার, জুয়েল, শুভ, জুম্মান, আব্বাস আলীসহ ২০-২৫জনের একটি দল তার ওপর হামলা করে এলোপাথারীভাবে মারধর করে মারাক্তকভাবে আহত করে। আহত সাদেকুর রহমানকে উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে আহত সাদেকুর রহমান বাদি হয়ে অভিযোগ দায়ের করেন।
এদিকে গত ১২ ফেব্রুয়ারী আলগীর চর গ্রামের মো. সাহাবউদ্দিন তার বাড়িতে বিল্ডিং নির্মাণ করতে গেলে হযরত বাহিনী তার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। তাদের দাবিকৃত চাঁদা না দিলে প্রাণ নাশের হুমকি দেওয়া হয়। পর দিন মো. সাহাবউদ্দিন বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় ৭ জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন।
অপর দিকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার বিকেলে আলগীর চর গ্রামের মৃত আফসার উদ্দিন মাস্টারের ছেলে জসীম উদ্দিনকে একা পেয়ে হযরত আলীর নেতৃত্বে ১০-১৫জনের একটি দল তার চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দিবে বলে হুমকি দেয় এবং অকর্থ ভাষায় গালিগালাজ করে। এ ঘটনায় জসীমউদ্দিন বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

গতকাল ১৬ জানুয়ারী সকালে হুমায়ুন কবির ছেলে হৃদয়কে বারদী বাজার মাঠের একা পেয়ে মারধর করে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। এবিষয়ে হৃদয়ের বাবা হুমায়ুন কবির বাদি হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। ১৭ জানুয়ারি সকালে আলগীর চর গ্রামের মৃত শফিউল্লাহর ছেলে ব্যবসায়ি আনোয়ার হোসেন সকালে বাজার করার উদ্দেশ্য হযরত আলী (ডাকাত হযরত) এর বাড়ি রগুনাথ পুকুর পাড় দিয়ে আসতে গেলে, হযরত ডাকাত আনোয়ারের পথ আটকীয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং তাকে মারধর করার উদ্দেশ্যে বারদী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম জয়নাল আবেদীনের বাড়িব সামনে তাড়া করে নিয়ে যায়। এসময় তার চিৎকারে শোনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হযরত ডাকাত প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এই ঘটনায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি আনোয়ার হোসেন বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযুক্ত হযরত আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি প্রতিবাদ করলেই আমাকে ডাকাত অখ্যা দেয়। আমার অতীতের কার্য্যকলাপ নিয়ে সমালোচনা করে, গাড়ির সাইড নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে ঝগড়া হয়েছে। এটি দ্রুত মিমাংসার করা হবে।
সোনারগাঁ থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. মহসিন বলেন, হযরত আলী ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলছে। তবে একটি অভিযোগের তদন্ত হয়েছে। সেই অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।