মাদ্রাসার কমিটির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে দোকান্দারদের অনশন

57

মোর্শেদা মুন্নি:
জামি’আ আরাবিয়া দারুল উলূম দেওভোগ মাদ্রাসার উন্নায়নের উদ্দেশ্য মাদ্রাসার সামনে মেইন রোডের পাশে কিছু দোকানের ব্যাবস্থা করা হয়। যার ভাড়া ও জামানতের টাকা সম্পুর্ন মাদ্রাসার উন্নয়ন মুলক কাজে ব্যায় করার কথা উল্লেখ করে মাদ্রাসা কমিটি।

২০১০ সালে দোকান বুঝিয়া পাওয়ার উদ্দেশ্যে কর্নার মুখি দোকানের জন্য ৪,৫০,০০০ টাকা ও মাঝের দোকানের জন্য ৪,০০,০০০ টাকা দেয়া হয়েছে এবং বলা হয়েছে যে ১০০০ টাকা করে প্রতি মাসে ভাড়া ধার্য্য করা হল এবং প্রতি বছরে ১০০ টাকা করে মাস প্রতি ভাড়া বাড়ানো হবে। এই টাকা গুলো সম্পুর্ন মাদ্রাসার ভবন নির্মানে ব্যায় করা হবে বলে দোকান গুলোর চুক্তিনামা করা হয়। তখনকার চুক্তি ছিল ৩ বছরের এবং প্রতি ৩ বছর পর পর নতুন চুক্তিনামা নবায়ন করা হবে এবং সে সময়কালের বর্তমান বাজারদর হিসেবে ভাড়া কার্যকর করা হবে।

তবে ২০১০ সালে যে চক্তিনামা করা হয়েছিল সে আচুক্তিনামা আর নবায়ন করা হয় নাই তবে দোকানের ভারাটিয়ারা যাদের কাছথেকে দোকান ভাড়া নেন এবংকি ২০১০ থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত দোকানে ব্যাবসা বানিজ্য পরিচালনা করে আসেন তবে এই দীর্ঘ সময় দোকানের ব্যাবসা বানিজ্য পরিচালনা চলা কালে দোকানদাররা মালিক পক্ষের সাথে ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়টি আলোচনার সাপেক্ষে সমযতার মাধ্যমেই এই দীর্ঘ সময় ধরে তারা দোকানে ব্যাবসা বানিজ্য পরিচালনা করে আসছেন।

বর্তমানে মাদ্রাসার নতুন কমিটি গঠনে তাদের এই দোকান ভাড়াটিয়া ও মালিক পক্ষের উপর অনাকাঙ্ক্ষিত চাপ আসে এতে তারা জানান যে যদি দোকানের চক্তিনামাতে নতুন করে ভাড়া ও জামানত হিসেবে বাড়াতে হয় তাহলে তাদের সবাইকে বিষয়টি অবগত করে সমযতার মাধ্যমে একটি উদ্যোগ নেয়া দরকার তবে দোকানের ভাড়াটিয়া ও মালিক পক্ষ জানান যে নতুন কমিটি ভাড়াটিয়া ও মালিক পক্ষ কারো সাথে কোন ধরনের আলোচনা ও অবগত না করে কমিটি নিজেরাই একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে দোকানের ভাড়াটিয়া ও মালিক পক্ষের উপর একপ্রকার চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দোকানের ভাড়াটিয়া ও মালিক পক্ষ।তারা জানান নতুন কমিটি নাকি তাদেরকে দোকান প্রতি নতুন করে ৭লক্ষ্য ও ৮হাজার করে প্রতি মাসের ভাড়া হিসেবে নতুন চুক্তিনামা চালু করতে।
এ প্রস্তাব দেয়ার পরে দোকানের ভাড়াটিয়া ও মালিক পক্ষ জানান যে তারা বর্তমান পরিস্থিতিতে তাদের এই নতুন চুক্তি তাদের পক্ষে সম্ভব না তবে যদি বাড়াতে হয় তাইলে জামানতের ১লক্ষ টাকা ও প্রতি ৩বছর পর পর ৫০০টাকা করে ভাড়া বাড়াবে বলে জানিয়েছেন। এতে নতুন কমিটি তাদের জানাবেন বলে এক দেড়মাস পার হবার পরে তারা কিছু জানান নাই তবে ৫-৩-২০২৪ তারিখ প্রতি দোকানে দোকানে নোটিস দেন যে কমিটি যে প্রোস্তাব দিয়েছেন সে বিষয়ে ৩দিনের মধ্যে কমিটিকে জানাতে অন্যথায় দোকানে ছেড়ে দিতে।