ফতুল্লায় বাসে তল্লাশীর সময় পুলিশ গুলিবিদ্ধ

419

ফতুল্লা প্রতিনিধি: ফতুল্লার মুন্সিখোলার তালতলা চেকপোস্টে বোরাক পরিবহনের একটি বাসে তল্লাশীর সময় সন্ত্রাসীদের গুলিতে মো. সোহেল নামে এক কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ অক্টোবর) বেলা ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহত পুলিশ সদস্যকে নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে আনা হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাবার পরামর্শ দেন। এরপর আহত পুলিশ সদস্যকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আহতের বাম পায়ের উড়ুতে এখনও গুলি রয়েছে বলে ধারণা কর্তব্যরত চিকিৎসকের।

খানপুর ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সারোয়ার বলেন, আহতের বাম পায়ের উড়ুতে গুলি লেগেছে। আমার কাছে মনে হচ্ছে গুলিটা এখনো পায়ের ভেতরেই আছে। পায়ের এক্সরে করে দ্রুত অপারেশন করতে হবে যা এখানে সম্ভব নয়। তাই তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যাবার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, ফতুল্লার মুন্সিখোলা চেকপোস্টে বোরাক পরিবহনের একটি বাসকে থামিয়ে চেকিং করতে বাসের ভেতরে যান কনস্টেবল মো. সোহেল। এ সময় সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মোর্শেদ আলমসহ আরো দুই পুলিশ সদস্য বাইরে ছিলেন। কনস্টেবল সোহেল গুলি করা ওই ব্যক্তির ব্যাগ চেক করতে চাইলে বাধা দেয় সে। এক পর্যায়ে কনস্টেবল মো. সোহেলকে গুলি করে বাইরে থাকা এক মোটর সাইকেল যোগে পালিয়ে যায় ওই সন্ত্রাসী। এ সময় বাইরে থাকা পুলিশ সদস্যরা পাল্টা গুলি করলেও সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মনিরুল ইসলাম ও ফতুল্লা থানাল ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসপাতালে আসেন। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, মুন্সিখোলা চেকপোস্টে ১২টার দিকে নিয়মিত ডিউটির অংশ হিসেবে বোরাক বাস থামিয়ে তারা চেকিং চালায়। তল্লাশির এক পর্যায়ে গুলি করা ওই সন্ত্রাসী আমাদের পুলিশ সদস্যকে গুলি করে পালিয়ে যায়। আমরা সিসিটিভি ফুটেজ পেয়েছি। আমরা এ বিষয়ে তদন্ত করে সন্ত্রাসীদের ধরতে সক্ষম হবো বলে মনে করি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা মনে করছি, আগে থেকেই মোটরসাইকেল যেহেতু বাইরে ছিল সুতরাং বোঝা যাচ্ছে বাসের ভেতরে অবস্থানকারী ওই ব্যক্তির সাথে মোটর সাইকেলের আরোহীদের একটি সংযোগ ছিল।