নারায়ণগঞ্জ-১ আসনে হাল ছাড়েনি জাপা,আজম খানকে প্রার্থী ঘোষনা

415

রূপগঞ্জ প্রতিনিধিঃআগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-১ রূপগঞ্জ আসনে এখনো হাল ছাড়েনি জাতীয় পার্টি। দলের  প্রেসিডেন্ট হুসাইন  মুহাম্মদ এরশাদ নিজে আসনটি দাবি করলেও সর্বশেষ মহাজোটের প্রধান শরিক আওয়ামীলীগের সাথে চুড়ান্ত ফায়সালা না হওয়ায় দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য আাজম খানকে প্রার্থী করা হয়েছে এই আসনে। জোটবদ্ধ নির্বাচন হলে জাতীয় পার্টি এই আসনে চুড়ান্ত দাবিদার বলে জানিয়েছেন  প্রার্থী আজম খান।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ-১ রূপগঞ্জ আসন নিয়ে বহু পূর্ব থেকেই আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির মধ্যে টানাপোড়েন চলছিল। এই আসনে বর্তমান সাংসদ গোলাম দস্তগীর গাজীর প্রতিপক্ষ হিসেবে স্থানীয় আওয়ামীলীগ জোটবদ্ধ হয়ে মনোনয়ন দাবি করেন। দলের মনোনয়ন প্রত্যাশায় আওয়ামীলীগ থেকে ৩২ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। আসনটিতে জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে প্রাথমিক পর্যায়ে সাইফুল ইসলামকে মনোনয়ন দিলেও পরবর্তিতে এরশাদ নিজেই এ আসনে প্রার্থী হবার ঘোষনা দেন। তারপক্ষে সরকারিভাবে মনোনয়নপত্রও সংগ্রহ করা হয়। এছাড়া তিনি  ঢাকা ও রংপুর থেকেও মনোনয়নপত্র গ্রহন করেন। সেসময় আওয়ামীলীগ প্রধান শেখ হাসিনা এরশাদকে রংপুরের বাইরে ঢাকা অথবা রূপগঞ্জের মধ্যে একটি আসন বেছে নিতে নির্দেশ দেন। সে অবস্থায় জোটের প্রধান শরিক আওয়ামীলীগের সাথে চুড়ান্ত ফায়সালা না হওয়ায় এবং এরশাদ হাসপাতালে নিরুদ্দেশ হওয়ায় প্রার্থী সংক্রান্ত স্থবিরতা নেমে আসে এখানে। আওয়ামীলীগ এরশাদের দাবিকৃত আসন ঢাকা-১৭ থেকে চিত্র নায়ক ফারুক ও রূপগঞ্জ আসন থেকে বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজীকে তাদের দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেন। গত ২৮ নভেম্বর উভয়প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্রও দাখিল করে ফেলেছেন। দাখিলের শেষ দিন বিকেলে নারায়নগঞ্জ জেলা রিটানিং অফিসার রাব্বি মিয়ার কাছে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য আাজম খান নারায়ণগঞ্জ-১ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। নারায়ণগঞ্জ-১ ছাড়াও আজম খান নরসিংদী-২ আসনে তার মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। অথচ তার নির্বাচনী এলাকা গাজীপুর-৫। এ অবস্থায় জোটবদ্ধ নির্বাচন হলে ঢাকা-১৭ অথবা নারায়ণগঞ্জ-১ আসনটি জাপাকে ছেড়ে দেয়া হতে পারে বলে স্থানীয়ভাবে আলোচনা হচ্ছে।