সিদ্দিরগঞ্জে অবৈধ মেলায় প্রকাশ্যে জুয়া ও মাদক বিক্রি

105

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় বাজারে ব্যাপক আয়োজন করে বিশাল আকৃতিতে বসেছে জেলা প্রশাসকের অনুমোদনহীন অবৈধ মেলা , প্রকাশ্যে চলছে মাদক, জুয়া ও মেলায় আলোক সজ্জার জন্য দেয়া হয়েছে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ।

বৃহস্পতিবার ২১ জুলাই থেকে মেলাটি চালু করা হয় বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায় আর এই মেলাটির পরিচালক হলেন জুয়ারী মিঠু। এই ধরনের মেলাগুলিতে জুয়া, মাদক, নারীর দেহ ব্যবসা এবং কিশোর গংদের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিভিন্ন অনৈতিক কার্যকলাপ ঘটে থাকার কারণে প্রশাসন এই ধরনের মেলা কে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। সাম্প্রতিক কালে বাণিজ্যিক হস্তশিল্প বা কুটির শিল্পর মেলার আয়োজন করতে গেলে লাগে জেলা প্রশাসকের অনুমোদন। জেলা প্রশাসকের তদারকির মাধ্যমে নিয়ম-কানুন বেদে দিয়ে এই সকল মেলাগুলির অনুমোদন দেওয়া হয়।

কিন্তু জুয়ারি মিঠু এই নিয়মকানুন তোয়াক্কা না করে প্রশাসনকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে অবৈধ কিছু লোকের ছত্র ছায়ায় সিদ্ধিরগঞ্জ, ফতুল্লা, বন্দর, সোনারগাঁও এমনকি নারায়ণগঞ্জ সদরে ও বীরদর্পে চালিয়ে যাচ্ছে এই অবৈধ মেলা। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার নাসিক ৩ নং ওয়ার্ড সানারপাড় বাজার সংলগ্ন ফজলুল হকের বালুর মাঠে তার এই দৃশ্য দেখা যায়। জুয়াড়ি মিঠু স্থানীয় ক্যাডার বাহিনীর শেল্টারে এই মেলা বসিয়েছে। মেলাকে ঘিরে সন্ধ্যার পর জমে উঠে মাদক বেচাকেনার হাট। কিশোর গ্যাং, মাদকসেবী ও বখাটেদের উশৃঙ্খলাতায় বিব্রত হচ্ছে মেলায় স্থানীয় প্রতিবেশী ও পথচারীরা। উচ্চস্বরে মাইকে অশ্লীল গানবাজনা ও হইহুল্লায় শিক্ষার্থীসহ এসএসসি পরীক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত হচ্ছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মেলার হরেকরকম দোকানপাট, নাগর দোলা, নৌকা দোলা, চরকি, চোরকি জুয়া, লটারি জুয়া বসানো হয়েছে বিনোদনের নাম দিয়ে। মাত্র তিন মিনিটের জন্য নৌকা দোলার টিকিট ৩০ টাকা, নাগর দোলায় ৩০ টাকা, ট্রেন ২০, চরকি ২০ টাকা লটারি জুয়া ২০০ টাকা গুনে দিতে হয়। হরেকরকম দোকান থেকে চাঁদা নেওয়া হয় দৈনিক ২০০ থেকে ৩০০শত টাকা করে। দোকানে বিদ্যুৎ লাইট জ্বালানো বাবদ দিতে হয় ১০০ করে টাকা। দেশে যেখানে বিদ্যুৎ ঘাটতি চরণমে।
প্রতিদিন ঘন্টার পর ঘন্টা ঘন্টা হচ্ছে লোডশেডিং বিদ্যুৎ ঘাটতি মেটানোর জন্য। আর এদিকে ব্যাপক আলোকসজ্জা করে সাজিয়েছে এই অবৈধ মেলা অসাধু কিছু কর্মকর্তাদের আর্থিক ম্যানেজ করেই অবৈধ বৈদ্যুতিক সংযোগের মাধ্যমে চালাচ্ছে এই অবৈধ মেলায়।
জুয়াড়ি মিঠু মেলার সুযোগ নিয়ে দেদারছে মাদক বেচাকেনা ও অসামাজিক কার্যকলাপ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ প্রত্যক্ষদর্শীদের। দৈনিক লক্ষাধিক টাকার টার্গেট নিয়ে বসানো হয়েছে এই মেলা। মেলার আয় থেকে দৈনিক মোটা অংকের টাকা বরাদ্দ রাখেছে পুলিশের নামে। বাকী টাকা ভাগবন্টন হচ্ছে ক্যাডার বাহিনী ও মেলার আয়োজকদের মধ্যে।
জুয়াড়ি মিঠু একজন পেশাদার মেলা আয়োজনকারী , তার রয়েছে অনেক গুলি ম্যানেজার। বিভিন্ন স্থানে মেলা বসিয়ে একেক জনকে এক এক দায়িত্ব দিয়ে দূর থাকে জুয়াড়ি মিঠু। দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করে পুলিশের টহল টিম আসলে স্থানীয় সোর্সের মাধ্যমে তা সমাধান করে ফেলে টাকার বিনিময়ে। তার রয়েছে কিছু পালিত সোর্স। জুয়াড়ি মিঠুর সাথে কথা বলে জানা যায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের সাথে কথা বলে মেলাটি বসানো হয়েছে। তবে লিখিত কোন অনুমতি পত্র দেখাতে পারেননি তিনি।

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন। এই অবৈধ মেলার বিষয়ে আমি জানিনা। যদি এই ধরনের মেলা কেউ করে থাকেন আমি যথাযথ ব্যবস্থা নেব।