সোনারগাঁয়ে সাধন হত্যা মামলার রায় ঘোষণা(২)জনের মৃত্যুদণ্ড (১)জনের যাবজ্জীবন

57

   মোঃ মোক্তার হোসাইন 

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে চাঞ্চল্যকর সাধন মিয়া হত্যা মামলায় দুজনের মৃত্যুদণ্ড ও একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সেই সাথে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুজনকে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্তকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও তিন মাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।
রোববার ৩ মার্চ দুপুরে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ চতুর্থ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আক্তারুজ্জামান ভূইয়া এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময়ে আসামিরা আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- একই এালাকার মোঃ আব্দুর রহমান সরকারের ছেলে মোঃ শামীম (৪৬) ও আব্দুল মান্নানের ছেলে মোঃ আল আমিন (৩৫) এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হলেন- সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর ইউনিয়নের পূর্ব কান্দারগাঁও এলাকার জজ মিয়ার ছেলে রাসেল (৩৪)।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ২০১৪ সালের ১৭ জুন নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানার একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সহ দুই জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এই মামলাটি বেশ চাঞ্চল্যকর ছিল। ভিকটিমের পরিবার এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করছেন।
আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট মোঃ শামীম হোসাইন বলেন, সোনারগাঁ উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের কান্দারগাঁও ফয়জুল হকের ছেলে সাধনকে ২০১৪ সালের ১৬ জুন রাতে এলাকায় গলাকেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। যা সোনারগাঁসহ নারায়ণগঞ্জজুড়ে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করে। সেই সাথে এই ঘটনার পরের দিন নিহত সাধনের মা জয়তুন নেছা বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।
তিনি আরো বলেন, এই মামলায় নিহত সাধনের দুই বন্ধু শামীম ও আল আমিনকে গ্রেপ্তার করা হলে তাদের স্বীকারোক্তিতে এ হত্যাকাণ্ডে চারজনের নাম উঠে আসে। অন্যরা হলো রাসেল ও মোহাম্মদ আলী। পরবর্তীতে আসামি মোহাম্মদ আলীকে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে হত্যা করে। বর্তমানে এ মামলায় তিনজন আসামি ছিল। এই মামলায় বিচার কার্যক্রম শেষে ১৯ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে আদালত এই রায় প্রদান করেছেন।