আশরাফুলের স্বরচিত কবিতা জাগো নজরুলের রণ সুরে বাঙালি

1157

 

 

জাগো নজরুলের রণ সুরে বাঙালি

—- আশরাফুল এমডি

 

কোথায় আছি বেঁচে

আমি কোন সোনার দেশে ।

যেথায় কান্নার সুর মা –

বোনের চিৎকার আসে ভেসে ।

 

কি চেয়েছিল একাত্তরে

আর কি পেয়েছি আজ ।

যারা দুঃখি তারা দুঃখিই

রাজাকারা-ই করছে রাজ ।

 

চোখ খুলে দেখি পত্রিকায়

কালো অক্ষরে লেখা পাতায় ।

আত্মহত্যায় মরছে মা-বোন

পড়তে যে চোখে পড়ে যায় ।

 

কেনো মরলো ঐ মা-বোন

প্রশ্ন যখনি হলো আমার ।

উত্তর নেই তার মাথা রাখার

চারদিক তার শুধু হাহাকার ।

 

সবুজ-শ্যামল-রুপসী বাংলা

আমার এই ছোট্ট সুন্দর দেশ ।

তার মাঝে গণধর্ষণ-গণহত্যা

আমি রোজ দেখছি বেশ ।

 

চেয়েছিল কি মুক্তিবাহিনী

আজ বোনটির করুণ কাহিনী ।

চেয়েছিল কি একাত্তর বাহিনী

গণধর্ষণ-গণহত্যার নতুন কাহিনী ।

 

গণধর্ষণে হচ্ছে যারা স্বীকার

ওরা আমারই মা-বোন ।

ন্যায় বিচার পায় না কেনো

নেই দাম সামাজে কোন ক্ষণ ।

 

পুলিশরা আজ টাকার চাকর

টাকাই বোধ হয় তাদের বাপ ।

ওরা মৃত্যুকে ভুলেই গেছে

ভুলে গিয়েছে কাকে বলে পাপ ।

 

চক্ষু খুলে দেখি একঘর এগিয়ে

ধর্ষণ হলে দোষ নেই পুলিশের ।

যারা হলো দোষী তারাই হা হা হা

বাহাদুর এই সবুজ-শ্যামল দেশের ।

 

কেউ হলো মন্ত্রীর ভাগিনা

এমপি আবার কারও বাবা ।

কোন পুলিশ ধরলে তাকে

পরে ভুল বলে করে তওবা ।

 

কোথায় আজ বাংলার সংবিধান

কোন পাঠাগারে আচে রাখা ।

চাকরী জন্য মুখস্থ করতে হয়

তার বাস্তবতায় কেনো ফাঁকা ।

 

বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন কি

এই সংবিধান লেখা ।

শিশুটির মুখের হাঁসি,

আজ কান্নার ছবি আঁকা ।

 

কি চেয়েছিল বঙ্গবন্ধু

শেখ মুজিবুর রহমান

এই পদ্মা-মেঘনা-যমুনায়

লাশের উপর লাশের সু-ঘ্রাণ ।

 

রোজই হচ্ছে অনেক বোন ধর্ষণ

তারা রাখছে ধামা-চাপা দিয়ে ।

ধর্ষিতা হলে পিতার মাথায় চিন্তা

কন্যাকে করিবে কে বিয়ে ।

 

আবার সমাজে জীবন নাশের

হুমকির মুখে সাধারণ পড়ে ।

অস্ত্র দেখে তারা ভয়ে থাকে

কথা কয় না ঘরের বাহিরে ।

 

ঐ ভীতুদের বলছি আমি আজ

বেঁচে থেকে করবে কি জীবনে ।

থাকো যদি ঈঁদুরের মতো গর্তে

ভয় করে ঐ বিড়ালের আক্রমণে ।

 

আজ সবাই এক হই চলো

করি প্রতিবাদ ওদের বিরুদ্ধে ।

নজরুলের রণ গান ধরি সবাই

এসো ন্যায়-অন্যায়ের যুদ্ধে ।

 

কত ভাই আজ মরছে দেখি

রাস্তার ধারে আছে পড়ে ।

কবে হত্যাকারীর হবে শাস্তি

বঙ্গবন্ধুর গড়া ঐ কাঠগড়ে ।

 

আমি আর চাই না দেখতে

মায়ের স্নেহের খালি বুক ।

আমি চাই না আর শুনতে

বাবা-মেয়ের কান্নার শোক।